May 14, 2021, 12:43 pm

সুনামগঞ্জ হিজরা নেত্রী কে হত্যা চেষ্টা :; লুটপাটের অভিযোগ

রোকন মিয়া সুনামগঞ্জ থেকে :­   তাহিরপুর উপজেলার লাউড়ের গড় সীমান্ত এলাকার শাহ্ আরেফিন মাজারে(সায়দাবাদ) হিজরা নেত্রী মাহুমা আক্তার স্বর্নালি কে হত্যা চেষ্টা ও তার ঘরে লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায়,সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে মহুয়া আক্তার স্বর্ণালী (৩১) নামের তৃতীয় লিঙ্গের এক নেত্রীর গলায় রশি পেঁচিয়ে টেনেহিঁচড়ে নির্যাতন ও মারপিট করে হারিচ বাহিনী । পরে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সদর হাসপাতালের ৬ তলায় মহিলা সার্জারি ৬০৪ নম্বরের ৩০ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন আছেন তিনি। শনিবার (২০ মার্চ) দিবাগত রাত ৮ ঘটিকায় তাহিরপুর উপজেলার লাউড়েরগড় হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) আস্তানার (সায়দাবাদ) পাশে এই ঘটনাটি ঘটে। এই ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন স্বর্ণালীর আত্মীয় স্বজনরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, স্বর্ণালী তাহিরপুর উপজেলার বড়ছড়া এলাকার  বাসিন্দা মৃত হাজি আলী আহমদের সন্তান। তিনি তৃতীয় লিঙ্গের হওয়ায় নিজ ইচ্ছায় পরিবার থেকে আলাদা হয়ে একই উপজেলার লাউড়েরগড় হযরত শাহ আরেফিন (রহ.) আস্তানার পাশে নিজস্ব বাড়ি তৈরি করে বসবাস করে আসছিলেন। একপর্যায়ে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে একটি সংগঠনও তৈরি করেন। ওই সংগঠনে সদস্য হতে চেয়েছিলেন স্থানীয় হারিছ উল্লাহ ও অন্যান্যরা। কিন্তু স্বর্ণালী তাদের সংগঠনের সদস্য করেননি। এতে ক্ষুদ্ধ হয় হারিছ উল্লাহ গংরা।

অভিযোগে জানাযায় , শনিবার রাতে হারিছ গংরা যাদুকাটা নদী থেকে অবৈধ বালু-পাথর উত্তোলন করতে কোম্পানী কমান্ডারের কাছে সুপারিশ করতে স্বর্ণালীকে বলেন। স্বর্ণালী এতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এসময় ২৫-৩০ জন উত্তেজিত হন হিজরা নেত্রী স্বর্ণালীর ওপর। একপর্যায়ে মারপিটের পাশাপাশি তার গলায় রশি বেঁধে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায় তার বসত বাড়ি থেকে নিয়ে তাকে রশি দিয়ে পেঁচিয়ে হত্যা চেষ্টা করে হারিচ গ্যাং পরবর্তীতে তার সারা জীবনের অর্জিত প্রায় সংরক্ষিত চার লক্ষ টাকা ও তার সর্নালংকার তার ব্যাবহারের মোবাইল টি ছিনিয়ে নিয়ে। ঘটনা স্থল থেকে বিভিন্ন লোকজন ও তার এক আত্মীয় তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় মেডিক্যাল নিয়ে আসতে চাইলে বাধা প্রধান করে সংশ্লিষ্ট সন্ত্রাসীরা। পরবর্তীতে কয়েক জনের সহযোগীতায় তাকে লাউড়ের গড়ে প্রাথমিক চিকিৎসা করে অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সদর হসপিটালে আসা হয় এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত তিনি সুনামগঞ্জ সদর হসপিটালে ভর্তি আছেন বলে জানা যায়।

জেলা হিজরা ফাউন্ডেশনের সভাপতি মাহুমা আক্তার স্বর্নালির সাথে এমন  নিন্দাজনক ঘটনায় সুশীল ও হিজরাদের মধ্যে প্রচন্ড উত্তেজনা বিরাজ করছে বলেও জানাযায়।

এবিষয়ে মাহুমা আক্তার স্বর্নালির বড় ভাই ছালাম জানান, আমাদের পক্ষ থেকে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে দ্রুত আইনি পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি অনুরোধ করছি  আমরা স্থানীয় দামাচাপার  বিচার নয় আইনি পদক্ষেপ চাই।

এবিষয়ে তাহিরপুর থানার ওসি এক প্রশ্নের জবাবে  বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,  এবিষয়ে আমরা অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি আমরা দেখছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ: